pep.zone
Welcome, guest. You are not logged in.
Log in or join for free!
 
Stay logged in
Forgot login details?

Login
Stay logged in

For free!
Get started!

Text page


paribarik-chodachudi.pep.zone

পারিবারিক প্রেমের উপাখ্যান. [Big Story]



.....................
কলকাতার একটা অভিজাত পরিবারের কাহিনী এটি। একটি সাদা বাড়ি,সঙ্গে একটা বাগান। বাড়ীর সামনে একটা পেল্লাই দরজা। বাড়ীর ছোট ছেলে জয় কলেজ থেকে দেরী করে বাড়ি ফিরেছে। স্নান করে নিয়ে ফ্রেশ হয়ে, গেঞ্জী আর পজামা পরে শুয়ে রয়েছে। জয় তার বাবা,মার সাথে থাকে। জয়ের আরেকজন দাদা আর এক দিদি আর একজন বোন আছে। বড় দিদি কাকলির বিয়ে হয়ে গেছে,ওর একটা ছোট ১৪ মাসের বাচ্চাও আছে। ছোট বোনের নাম মিতালী, ওর বয়স ১৮ সবে সে উচ্চ মাধ্যমিক দিয়েছে। ওর দাদা সুজয় সবে সবে চাকরীতে যোগ দিয়েছে।খাটে শুয়ে শুয়ে সে আজকের দিনের কথা ভাবছিল, আজকে সে আবার রাকেশের বাড়ী গিয়েছিল। সল্টলেকে ওদের একটা বাংলো বাড়ী আছে। একবার গাড়িতে করে বেড়াবার সময় রাকেশ জয়কে জিজ্ঞেস করে, “আমার মা কে তোর কিরকম মনে হয়?” কাকিমার সাথে এর আগে কয়েকবার মাত্র দেখা করেছিল জয়। রাকেশের উত্তরে সে বলে, “খুব ভাল, খুব মিষ্টি।”
“শুধু মিষ্টি নয়, একটু নোনতাও আছে।”, কেমন একটা বাঁকা হাসি হেসে রাকেশ কথাগুলো বলে।বন্ধুর জবাবে জয় একটু যেন অবাক হয়ে যায়। রাকেশের বাড়ি গেলে,কাকিমা ওকে স্বাগতম জানায়, রাকেশ মুখ বাড়িয়ে হাল্কা করে নিজের মায়ের ঠোঁটে একটা চুমু দেয়।যদিও এটা সেরকম কোন চুম্বন ছিল না তবুও জয় এর আগে কাউকে চোখের সামনে এভাবে চুমু খেতে দেখেনি।ও ভীষণ অবাক হয়ে যায়।
জয় রাকেশের সাথে ওর নিজের ঘরে ঢুকে যায়। জয় টিভির রিমোট নিয়ে একটা গানের চ্যানেল এ দেয়। খুব ভালো কোন কিছু টিভিতে চলছিল না, তাই জয় বলে ফেলে, “তোর কাছে নতুন কোন সিনেমা আছে কি? থাকলে দে না, খুব বোরিং লাগছে।” রাকেশ প্যাকেট থেকে একটা সিডি নিয়ে জয়কে প্লেয়ারে চালিয়ে দেখে নিতে বলে, সিনেমাটা চালিয়ে তো জয়ের চোখ ছানাবড়া। প্রথম সিনেই দেখাচ্ছে একটা লম্বা ফ্যাদা মাখা বাড়া একটা ভিজে গুদে ঢুকছে আর বের হচ্ছে।এর আগেও সে পানু বই যাতে বেশ কয়েকটা ন্যাংটা মেয়ে মরদের ছবি থাকে, সেগুলো দেখেছে। কিন্তু পানু
সিনেমা দেখার সুযোগ এখনও তার হয়ে ওঠে নি। চোখের সামনে চোদাচুদির দৃশ্য দেখে আস্তে আস্তে সে উত্তেজিত হয়ে ওঠে। প্যান্টের ভিতরে থাকা বাড়াটা কয়েক মুহুর্তের মধ্যেই ঠাটিয়ে ওঠে। রাকেশ আরও বেশি করে মজা নেওয়ার জন্য টিভির আওয়াজ আরও বাড়িয়ে দেয়। রাকেশের সাহস দেখে জয় হতবাক, ওকে বলে, “কী করছিস শালা!! কাকিমা তো পাশের ঘরেই, যদি শুনতে পেয়ে যায় “ধুর!মা এখন কাজে ব্যস্ত,ওকে নিয়ে চিন্তা করে ...
Next part ►


This page:




Help/FAQ | Terms | Imprint
Home People Pictures Videos Sites Blogs Chat
Top
.